Advertisement
Blogআখিরাতইসলামিক খবরইসলামিক ছবিসাওম - রোজাসালাত

সূরা কাওসার এর ফযিলত

ভূমিকা
সূরা আল-কাওতার কুরআনের সংক্ষিপ্ততম অধ্যায়গুলির মধ্যে একটি, তবুও এটি মুসলমানদের জীবনে গভীর তাৎপর্য বহন করে। এই নিবন্ধটি এই সুন্দর সূরাটির গুণাবলী, উপকারিতা এবং ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট অন্বেষণ করে।

Advertisement

সূরা আল কাওসার অবতীর্ণ
সূরা আল কাওসার মহান প্রতিকূল সময়ে মক্কা নগরীতে নবী মুহাম্মদ (সাঃ) এর উপর অবতীর্ণ হয়েছিল। এটি আল্লাহর অনুগ্রহ এবং কৃতজ্ঞতার গুরুত্বের অনুস্মারক হিসাবে কাজ করে।

সূরা আল কাওসারের ফজিলত
জান্নাতে একটি ঝর্ণা
একটি হাদিস অনুসারে, নবী মুহাম্মদ (সা.) বলেছেন যে সূরা আল কাওসার জান্নাতের একটি নদী যা তাকে আল্লাহ প্রদত্ত। যারা নিয়মিত এটি পাঠ করে তাদের এই বরকতময় ঝর্ণা দ্বারা একটি স্থানের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়।

পাপের ক্ষমা
আন্তরিকতার সাথে সূরা আল-কাওসার পাঠ করলে গুনাহ মাফ হয়ে যায়। এটি আল্লাহর রহমত ও অনুগ্রহ লাভের মাধ্যম।

সওয়াব বৃদ্ধি
এই সূরাটি পাঠকারী বিশ্বাসীরা ইহকাল ও পরকালে তাদের রহমত এবং সমৃদ্ধি বৃদ্ধি পাবে বলে বিশ্বাস করা হয়।

প্রতিকূলতা থেকে সুরক্ষা
সূরা আল কাওসারও এর পাঠকারীদের জন্য একটি সুরক্ষামূলক ঢাল হিসাবে কাজ করে, তাদের পরীক্ষা এবং ক্লেশ থেকে রক্ষা করে।

পবিত্র কুরআনের 30 তম অনুচ্ছেদের 108 তম সূরা হল সূরা আল কাওসা। এই সূরায় একটি মাত্র রুকু আছে। এতে তিনটি আয়াত রয়েছে। পবিত্র মক্কা নগরীতে সূরা আল কাওসার অবতীর্ণ হয়।
আল-কাওসারের অর্থ মহান কল্যাণ। সূরা নাহার এই আয়াতের অপর নাম।
সূরা আল কাওসা নাযিল হওয়ার সময় সাহাবায়ে কেরাম রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর হাসিমুখ লক্ষ্য করেছিলেন।
দোজাহানের অশেষ কল্যাণের বিস্ময়কর সংবাদ সূরা কাউসারে পাওয়া যায়। কিয়ামতের ময়দানে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর কাছে যে হাউজ কাওসা পেশ করা হবে তা এই সূরা থেকে জানা যায়।
হযরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম একদিন আমাদের কাছে মসজিদে হাজির হলেন। নবী এখন নিদ্রাহীন বা তন্দ্রাচ্ছন্ন বোধ করছেন।অতঃপর আল্লাহর নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) মুচকি হেসে মাথা তুললেন। “হে আল্লাহর রাসূল! আমরা চিৎকার করে উঠলাম। আপনি হাসছেন কেন, ঠিক? তিনি ঘোষণা করলেন, এইমাত্র আমার উপর একটি সূরা অবতীর্ণ হয়েছে। তারপর জিজ্ঞেস করলেন, তুমি কি জানো কাউসার কী? বিসমিল্লাহ সহ সূরা কাউসার পাঠ করার পর। “আল্লাহ এবং তাঁর রাসূলই ভাল জানেন,” আমরা মন্তব্য করলাম। এটি স্বর্গের খাল, তিনি ঘোষণা করেন। আমার প্রভুর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী আমি তা গ্রহণ করব।কিয়ামতের দিন আমার উম্মত পানি পান করার জন্য এ ঘরে আসবে কারণ এর অসংখ্য উপকারিতা রয়েছে। আকাশে যত তারা আছে ততই পানীয়ের পাত্র থাকবে। তখন ফেরেশতারা কিছু লোককে ঘর থেকে বের করে দেবেন। প্রভু, আমি ঘোষণা করব যে তিনি আমার উম্মত। আপনি জানেন না যে আপনার পরে তিনি কী নতুন আকীদা ও অনুশীলন গ্রহণ করেছিলেন, আল্লাহ তায়ালা বলবেন।
তখনকার আরবের লোকেরা তাদের ছেলেরা মারা গেলে ধ্বংসকারী হিসেবে অভিযুক্ত হতো। কাসেম বা হযরত ইব্রাহিম (আঃ) এর ইন্তেকালের পর আরবের কাফেররা নবী করীম (সঃ) কে নিয়ে ঠাট্টা-বিদ্রুপ শুরু করে। আর এ অবস্থায় সূরা আল কাওসার অবতীর্ণ হয়েছে। মহানবী (সা.) তাঁর সম্মান ও মর্যাদার জন্য এই সূরায় উল্লেখ করা হয়েছে। পবিত্র কোরানের এই সূরা ঘোষণা করে যে, যারা কাফেরদের দাবি করেছিল যে নবী (সাঃ) ধ্বংস হয়ে গেছেন তারাও ধ্বংস হয়ে গেছে।

উপসংহার
উপসংহারে, সূরা আল-কাওতার মুসলিম উম্মাহর জন্য একটি আল্লাহর উপহার, যা আমাদেরকে আল্লাহর প্রচুর নেয়ামত এবং কৃতজ্ঞতার গুরুত্ব স্মরণ করিয়ে দেয়। এর গুণাবলীর মধ্যে রয়েছে ক্ষমা, বর্ধিত রহমত এবং প্রতিকূলতা থেকে সুরক্ষা। এই সূরাটি আশার বার্তা বহন করে, বিশ্বাসীদের আশ্বস্ত করে যে আল্লাহর রহমত সর্বদা যেকোন বিপত্তিকে ছাড়িয়ে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button